বিশ্ব জুড়ে বিয়ের আজব নিয়মকানুন

Spread the love

বিয়ে একটি খুব পবিত্র জিনিস ! যা দুটি অপরিচিত মানুষকে একটা অদৃশ্য বন্ধনে বেঁধে ফেলে, দুটি পরিবারের মধ্যে আত্মীয়তা সৃষ্টি করে। যে কোন দেশ বা যেকোন সংস্কৃতি বা যেকোন ধর্মেই বিয়ে খুবই পবিত্র একটা বস্তু। আমরা সাধারণত বিয়ে বলতে বুঝি সবাই খুব সুন্দর সুন্দর ভাবে সেজে বিবাহ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবে, অনেক আনন্দ আর খাওয়া-দাওয়া হবে। কিন্তু পৃথিবীতে কোথাও কোথাও এমন কিছু নিয়ম প্রচলিত আছে যা দেখলে আপনার চোখ কপালে উঠবে। সেগুলি নিয়ে আজকে আমারা আলোচনা করব !

১. ক্রাইয়ং রিচুয়াল্স অফ চাইনা:-

চীনের টুজিয়া নামক একটি সম্প্রদায় বিয়ের প্রায় ৩০ দিন আগে থেকে কান্নাকাটি শুরু করে বিয়ের প্রস্তুতি নেয়। বিয়ের ৩০ দিন আগে থেকে বিয়ের কনে প্রতিদিন এক ঘণ্টা করে কান্নাকাটি করা শুরু করে। কোনে দশ দিন কান্নাকাটি করার পর তার সাথে তার মা-ও যোগ দেয়, এবং তার দশ দিন পরে তার গ্রান্ডমাদার ও তার সঙ্গে যোগ দেয় এভাবে করে পরিবারের সকল নারীর সদস্য যোগদান করে আর দিনে এক ঘণ্টা করে কান্নাকাটি করে। এটা তাদের কাছে কোন কষ্টের কান্না নয় বরং এটা হচ্ছে গভীর ভালবাসা ও খুশির কান্না,তারা সবাই গান গাওয়ার মত শুরু করে কান্নাকাটি করে। যা অন্য দেশের মানুষ শুনলে তারা ভুল করে ভেবে বসবে পারে তারা যেন গান গাইছে।

২.চীনের বস্ত্র হরণ বিবাহ :-

 দ্বিতীয়ত চীনের আরেকটি সম্প্রদায়ের বিয়ে  নিয়ম হলো – বিয়ের কনের কাপড় খুলে নেওয়া, শুনতে একটু বাজে লাগলেও এটা দ্বারা যুগের পর যুগ ধরে করে আসছে। এখানে কোন মেয়ের বিয়ে হলে বন্ধুরা কনের কাপড় খুলে নেওয়ার চেষ্টা করে, আর বর তাদের থেকে স্ত্রী বাঁচানোর চেষ্টা করে। আমরা সবাই জানি যে সব কাজ একেবারেই গ্রহণযোগ্য নয়। আর তারাও এটা জানে, কিন্তু সেখানকার নারীরা এটা না চাইলেও তাদেরকে টা করতে হয়। কারণ এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ না করলে তারা মনে করেন তাদের বৈবাহিক জীবন খুবই দ্রুত ধ্বংস হয়ে যাবে। আর এটাই সেখানকার নিয়ম যা না চাইলেও সেখানকার নারীরা এভাবেই পালন করে আসছে।

৩. কিসিং ট্রেডিশন সুইডেন :-

না এটা কোন ভাবেই বর কনে একাকী কোন রুমের মধ্যে বসে কিস করে না, বরং বিয়েতে যারা গেস্ট হিসাবে আছে তারা সবাই ইচ্ছা করলে কনেকে কিস করতে পারে। সেখানকার নিয়ম অনুসারে তাদের বিয়ের রীতি। বিয়েতে যখন সব চলে আসে কোনে তার চোখ বেঁধে বসে থাকে আর সকল অবিবাহিত পুরুষ রা তাকে কিস করে। অপরদিকে বিয়ের বরকে সকল অবিবাহিত মেয়েরা একে একে কিস করতে থাকে। শুনতে একটু কেমন লাগলেও এমনটাই হয়ে আসছে তারাও এ কারণে তাদের বিয়ের রীতিনীতি কে ইউনিক মনে করেন।

৪. ম্যারেজ উইথ এনিম্যালস (পশুর সাথে বিয়ে):-

ভারতের অনেক রাজ্যে মহিলাদের পশুর সঙ্গে বিয়ে দেওয়া খুবই সাধারন একটা ব্যাপার। এই রীতিনীতি পুরুষ বা মহিলার দুজনের জন্যই প্রযোজ্য হতে পারে। এটার মূল কারণ মহিলা বা পুরুষের জীবনে থাকা মঙ্গলিক দোষ। কোন মেয়ে যদি শরীরের কোন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ অস্বাভাবিক অবস্থা নিয়ে জন্মগ্রহণ করেন তবে সে মাঙ্গলিক দোষ নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছে এমনটাই তারা মনে করেন। তারা এটা মনে করে যে মাঙ্গলিক দোস্ত হওয়া কোন মহিলার বিয়ে প্রথমে কোন পশু বিশেষ করে ছাগল আর কুকুরের সাথে করানো হয় তবে তাদের জীবনের মাঙ্গলিক দোষ কেটে যায়। আর তারপর তাদের বৈবাহিক জীবন সুখে শান্তিতে ভরপুর থাকবে।

৫. ব্রিটি়ং দা গ্রমস ফিট দক্ষিণ কোরিয়া :-

দক্ষিণ কোরিয়ার বিয়ের এই অদ্ভুত নিয়ম বিয়ের পরে পালন করা হয়। বিয়ের পর বর তার জুতো মোজা খুলে শুয়ে পড়ে তার বন্ধুরা পায়ে দড়ি দিয়ে শূন্যে ঝুলিয়ে দেয়, তারপর তারা তার পায়ের পাতায় লাঠি বা হলুদ করভিনা দিয়ে মারতে থাকে হলুদ করভিনা হলো এক প্রজাতির মাছের কাটা। তারা বিশ্বাস করে যে এটা করলে বিয়ের প্রথম রাতের জন্য বর আরো শক্তিশালী হয়ে উঠবে। এটা বরের জন্য একটু কষ্টকর হলেও সেখানকার উপস্থিত মানুষরা বিষয়টা খুব উপভোগ করে থাকেন।

৬. কনেকে কোলে করে গেট থেকে ঢোকা :-

কনেকে কোলে করে গেট থেকে ঢোকা এটি মোটেও কোন নতুন প্রথা নয়, বরং এটা কয়েকশো আগে থেকে ইউরোপে পালিত হয়ে আসছে। আর এটাকে তারা মনে করেন এমন করলে সকল পকার খারাপ আত্মা থেকে বর-কনে দুজনেই দূরে থাকতে পারবে। আর কোলে করে ঘরে ঢোকার সময় সকল খারাপ আত্মা বা খারাপ ভাগ্য সব সময় বরের পায়ের নিচে থাকবে। আর কোনে এসবের থেকে সব সময় সুরক্ষিত থাকবে।

৭. বর কনের গায়ে ময়লা ঢেলে দেওয়া স্কটল্যান্ড :-

বর কনের গায়ে ময়লা ঢেলে দেওয়া এটা খুবই পুরনো একটা রীতি স্কটল্যান্ড এর। এটা খুবই বিরক্তিকর অবস্থা সৃষ্টি করে বিয়ের আগে এটা তাদেরকে একটা সারপ্রাইজ এর মত করে দেয়া হয়। হঠাৎ করেই বিয়ের আগে বর-কনেকে একসাথে করে তাদের গা মাথা থেকে শুরু করে পা পর্যন্ত ময়লা ঢেলে দেয়া হয়।আর তাদের এই ময়লা গুলোর মধ্যে ফ্রিজের নষ্ট খাবার, আটা, ময়দা, ডিম, মিষ্টি, পচা বাসি তরকারি ইত্যাদি। আর তারা মনে করে যে বর-কনেকে খারাপ আত্মা থাকে রক্ষা করবে।

৮. কনেকে কিডন্যাপ করা :-

এটা খুবই উন্মাদ টাইপের একটা নিয়ম, যাতে রাস্তায় চলাফেরা করা কোন একটা সুন্দরী মেয়েকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। আর এটা অনেক আগে থেকেই পৃথিবীতে চর্চা হয়ে আসছে। এই বিয়ে সাধারণত ব্রাইট কিডনাপিং নামে পরিচিত। এই বিয়েতে কনেকে বাধ্য করা হয় বিয়ের জন্য। আর কনেকে বাধ্য করে বর নিজে বা বরের আত্মীয়-স্বজন আর বন্ধু বান্ধব। বিয়েতে মেয়েকে তুলে নিয়ে এসে একটা রুমে বন্দী করে রাখা হয় যতক্ষণ না পর্যন্ত বরের পরিবার থেকে কোন মহিলা সদস্য এসে মেয়ের মাথায় স্কাপ পরিয়ে দেয়। স্কাপ পরিয়ে দেওয়া এক প্রকার এক্সেপ্ট টেন্স।

৯. কিরগিস্তানে রেপ করে বিয়ে করার নীতি :-

এখানে কোন ব্যক্তি কোন মহিলাকে অপহরণ করে তাকে ধর্ষণ করতে সক্ষম হলে ওই মহিলা যোগ্য পুরুষ হিসেবে ধরে নেয়া হয়। বিয়ের এই নীতি এখানে কয়েকশো বছর আগে থেকে চলে আসছে। আর ইতি সুযোগে এখানকার মহিলাদের সাথে জোরপূর্বক এই ঘৃণিত কাজ করা হয়। অনেক ধর্মের মানুষ এই রীতির বিরোধিতা করেছে কিন্তু এটা কখনোই থেমে থাকেনি।

১০. মানি ডান্স ম্যারেজ :-

মানি ডান্স ম্যারেজ সাধারণত পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গাতে দেখা যায়। এটি প্রথম শুরু হয়েছিল ১৯৯০ সালে পোল্যান্ডে। এই রীতিতে বিয়ের সময় কনে নাচে বরপক্ষের গেস্ট রা তাকে টাকা দিতে থাকে কখনো কখনো বর নাচে আর কনেপক্ষের গেষ্টরা টাকা দিতে থাকে। কোথাও কোথাও বিয়ের কনে তার বাবার সাথে রিসেপশন এর নেচে থাকে চাইলে তাদের সঙ্গে অন্য গেস্ট যোগ দিতে পারে।

 


Spread the love

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *